দ্বৈত চরিত্রে অনবদ্য ঋতু

‘লাইম এন লাইট’ ছবির একটি দৃশ্যে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত

ছবি:লাইম এন লাইট
পরিচালক:রেশমি মিত্র
অভিনয়:ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, অর্জুন চক্রবর্তী, শ্রীলা মজুমদার, জিতু কামাল
সময়সীমা:২ঘন্টা
রেটিং:৩.৫/৫

ধানবাদ টকিজ প্রযোজিত রেশমি মিত্র পরিচালিত ‘লাইম এন লাইট” ছবিটি মুক্তি পেয়েছে।রেশমি মিত্রর লেখা বেশ অন্যরকম এ ছবির কাহিনি।এই প্রথম দ্বৈত চরিত্রে অভিনয় করেছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত।একদিকে তিনি সুপারস্টার শ্রীময়ী সেন,আরেকদিকে অর্চনা সাহা নামে এক জুনিয়র আর্টিস্ট।এই অর্চনা সুপারস্টার শ্রীময়ীর অন্ধ ভক্ত।বেকার পঙ্গু দাদা,বৌদি,বোন ও ভাইপোকে নিয়ে অতি কষ্টের সংসার অর্চনার।তারই সামান্য আয়ে গোটা পরিবার চলে।অর্চনার উঁচু দাঁত,তোতলামির জন্য বিয়েও ভেঙে যায়।জুনিয়র আর্টিস্ট হওয়ার জন্য প্রতি পদে পদে তাকে অপমানিতও হতে হয়।তার দু চোখে রয়েছে স্বপ্ন একজন ভালো অভিনেত্রী হওয়ার।এদিকে সুপারস্টার শ্রীময়ী সেন,নাম্বার ওয়ান হিরোইন।এই শ্রীময়ীর বিদেশে একটা প্রোগ্রামে অংশ নিতে গিয়ে অ্যাক্সিডেন্টে গুরুতর আহত হন,কিন্তু বেশি দিন লাইম লাইটের বাইরে থাকলে তো নিজের নাম্বার ওয়ান জায়গা ধরে রাখা কঠিন।এরকম অবস্থায় শ্রীময়ী ঠিক করে অর্চনা শ্রীময়ী সেজে তার হয়ে কাজ করবে এক বছর,তার বিনিময়ে সে শ্রীময়ীর কাছ থেকে ২০ লক্ষ টাকা পাবে।কিন্তু ব্যাপারটা কেউ জানবে না।অর্চনাকে ঘষে মেজে তৈরি করবে শ্রীময়ী এরই মেন্টর অনিন্দ্য (অর্জুন চক্রবর্তী)।কিন্ত অর্চনা নতুন কোনো ছবির সাইন করতে পারবে না।কিন্তু ধীরে ধীরে অর্চনা শ্রীময়ীর জায়গা নিতে শুরু করে।শ্রীময়ী সুস্থ হয়ে ফিরে আসলে শুরু হয় আসল ঝামেলা।এরপর কি হয় তা নিয়েই কাহিনি।এরকম দুজন মহিলার লড়াই,বেশ ব্যতিক্রমী কাহিনি।প্রথমার্ধের চিত্রনাট্য বেশ টানটান হলেও দ্বিতীয়ার্ধে চিত্রনাট্যের বুনোট একটু আলগা হয়ে যায়।ছবিটা অনেক বেশি শক্তিশালী হতে পারতো যদি চিত্রনাট্যের বুনোট সমান ভাবে থাকতো।তবে ছবিটা অবশ্যই দেখতে হবে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের জন্য।একজন জুনিয়র আর্টিস্টের চরিত্রে যেমন তার শক্তিশালী অভিনয় তেমনি একজন সুপারস্টার চরিত্রে সমান শক্তিশালী।মেন্টর ও ম্যানেজারের ভূমিকায় অর্জুন চক্রবর্তী,অর্চনার বৌদির চরিত্রে শ্রীলা মজুমদার-দের অভিনয় প্রশংসা করতেই হয়।এই প্রথম ঋতুপর্নার বিপরীতে অভিনয় করলেন মেগা সিরিয়ালের জনপ্রিয় অভিনেতা জিতু কামাল।চরিত্র অনুযায়ী তিনিও যথাযথ।”লাইম এন লাইট” ছবিতে গানের কথা লিখেছেন ও সুর করেছেন অন্বেষা।এই প্রথম অন্বেষা ছবির সুরকার হিসেবে কাজ করলেন।তাঁর সুরে ছবির গানগুলো শুনতে মন্দ লাগে না।সব মিলিয়ে ‘লাইম এন লাইট’ ছবিটি দেখার মতোই ছবি।
রিভিউ:রামিজ আলি আহমেদ

Please follow and like us:
0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *