আগামীকাল মুক্তি পাচ্ছে ‘একটি সিনেমার গল্প’

রামিজ আলি আহমেদ:১৯৮৬ সালে ‘নিষ্পাপ’ ছবির মধ্যদিয়ে পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত অভিনেতা আলমগীর। ওই ছবিতে প্রশংসিত হয় বাংলাদেশের আলমগীর-চম্পা জুটি। প্রায় ৩২ বছর পর এই জুটি ‘একটি সিনেমার গল্প’ ছবির মধ্যে দিয়ে ফের সিনেমায় উপস্থিত হতে চলেছেন। ছবিতে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন টলি কুইন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত।তাঁর বিপরীতে অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের আরিফিন শুভ।’আহা রে’র পর আবারও একই একই ফ্রেমে দেখা যাবে ঋতুপর্ণা ও আরিফিন শুভ-কে।এই ছবিটির মধ্যদিয়ে দীর্ঘদিন পর ঋতুপর্ণা বাংলাদেশের সিনেমায় অভিনয় করলেন। ছবিটিতে আরও অভিনয় করেছেন সৈয়দ হাসান ইমাম, সাদেক বাচ্চু, ওয়াহিদা মল্লিক জলি, সাবেরী আলম, ববি, জ্যাকি আলমগীর’সহ অনেকে।

‘একটি সিনেমার গল্প’ ছবির একটি গানের সুর করেছেন কিংবদন্তী সঙ্গীতশিল্পী রুনা লায়লা। গাজী মাজহারুল আনোয়ারের কথায় গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন আলমগীর কন্যা আঁখি আলমগীর।ছবিটি ইতিমধ্যে বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছে।২৮ নভেম্বর অর্থাৎ আগামীকাল পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে চলেছে।সম্প্রতি কলকাতার ফ্লোটেল হোটেলে ছবির ট্রেলার ও মিউজিক লঞ্চ হয়ে গেল।
বাংলাদেশে ইতিমধ্যেই চলচ্চিত্রে পাঁচটি জাতীয় পুরস্কার পেয়েছে ‘একটি সিনেমার গল্প’। সেরা গায়িকার পুরস্কার পেয়েছেন আঁখী আলমগীর,সেরা টিউনের জন্য পেলেন রুনা লায়লা, সেরা কোরিওগ্রাফি মাদুদ বাবুল,সেরা শিল্প নির্দেশক উত্তম গুহ,সেরা পার্শ্বচরিত্রের জন্য পেলেন সাদেক বাচ্চু।

“আলমগীর বাংলা ছবির জগতের একজন।’একটি সিনেমার গল্প’ মূলধারার ছবি হলেও সবার কাছেই সমান গ্রহণযোগ্য হবে বলে আমার বিশ্বাস। পাঁচটি জাতীয় পুরস্কার যার ঝুলিতে, সেই ছবির মান যে কোন স্তরে সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না।”বললেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত।
পরিচালক হিসেবে ঋতুপর্ণার সঙ্গে কাজ করা প্রসঙ্গে আলমগীর বললেন,”
“ছবি পরিচালনা করার সময় আমি একজন শিল্পীর স্টারডামকে মাথায় রাখি না।
ঋতু আমার মেয়ে আঁখীর বন্ধু। ওকে এই ছবির গল্পটা বলেছিলাম। তারপর থেকেই ঋতুর সঙ্গে ঢাকা বা অন্য কোথাও দেখা হলেই ও ছবিটা করতে বলতো। তবে ছবি করব ভাবলেই তো আর তা করা হয়ে ওঠে না। যাইহোক শেষমেশ সেটা সম্ভব হলো।”

‘একটি সিনেমার গল্প’তে কবিতা (ঋতুপর্ণা) একজন বিখ্যাত বাংলা ছবির নায়িকা। একটি ছবির শুটিং করতে গিয়ে সে দুর্বল হয়ে পড়ে পরিচালক আকাশের (আলমগীর) প্রতি। কিন্তু ঘোরতর সংসারী আকাশ দিনের শেষে নিজের স্ত্রী ও সন্তানের কাছে ফিরতেই পছন্দ করে। অন্যদিকে সহঅভিনেতা সজীব (আরিফিন) কবিতাকে ভালোবাসলেও, সে তাকে শুধুমাত্র একজন ভালো বন্ধু ব্যতীত অন্য কিছু ভাবতে পারে না।এরপর কি হয় তা নিয়েই ছবির কাহিনি।

Please follow and like us:
0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *